Thu. Feb 22nd, 2024
    WhatsApp Group Join Now
    Telegram Group Join Now

    PM Vishwakarma Yojana : আগামী ১৭ সেপ্টেম্বরে চালু হবে প্রধানমন্ত্রী বিশ্বকর্মা যোজনা, একটি সক্ষমতা উন্নত স্কিম যা ভারতের শিল্পী ও কারিগরদের উৎসাহ দেতে নিউ হোপ আনছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী বিশ্বকর্মা যোজনা ঘোষণা করেছেন এবং এই যোজনার মাধ্যমে শিল্পীদের ও কারিগরদের উন্নতির সাথে সাথে তাদের সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিত করতে যাচ্ছেন।

    বিষয় সূচি ~

    কবে কোথায় চালু হবে যোজনা?

    প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর চালু করবেন প্রধানমন্ত্রী বিশ্বকর্মা যোজনা, যা জাতীয় দ্বারকার ইন্ডিয়া ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন অ্যান্ড এক্সপো সেন্টারে প্রারম্ভ হবে। এই উপায়ে, সরকার শিল্পী ও কারিগরদের সমৃদ্ধ করতে একটি প্রয়োজনীয় প্রয়াস শুরু করছে।

    কী সুবিধা পাওয়া যাবে এই স্কিমে?

    PM বিশ্বকর্মা যোজনার অধীনে সমস্ত শিল্পী ও কারিগরদের নিম্নলিখিত সুবিধাগুলি দেওয়া হবে:

    ১ম পর্যায়ে ১ ,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত ঋণ – ৫ শতাংশ হারে সুদ।

    প্রথম পর্যায়ে, শিল্পীদের প্রযুক্ত কাজের জন্য ১,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত ঋণ প্রদান করা হবে এবং এই ঋণের সুদ হবে ৫ শতাংশ।

    দ্বিতীয় পর্য্যে ২,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত ঋণ

    দ্বিতীয় পর্য্যে, শিল্পীদের প্রযুক্ত কাজের জন্য ২,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত ঋণ প্রদান করা হবে এবং এই ঋণের সুদ হবে ৫ শতাংশ।

    স্কিল ট্রেনিং

    যোজনা অনুযায়ী শিল্পীদেরকে স্কিল ট্রেনিং দেওয়া হবে, যা তাদের দক্ষতা এবং পেশাদারিতা উন্নত করতে সাহায্য করবে।

    বৃত্তি হিসাবে প্রশিক্ষণ

    প্রশিক্ষণের সময় প্রতিদিন ৫০০ টাকা বৃত্তি হিসাবে প্রদান করা হবে, যা শিল্পীদেরকে তাদের প্রশিক্ষণে যাওয়ার জন্য সাহায্য করবে।

    অগ্রিম টুল কিট

    প্রধানমন্ত্রী বিশ্বকর্মা যোজনা অনুযায়ী শিল্পীদের অগ্রিম টুল কিট কেনার জন্য ১৫,০০০ টাকা সহায়তা প্রদান করবে।

    প্রধানমন্ত্রী বিশ্বকর্মা শংসাপত্র ও পরিচয়পত্র

    প্রধানমন্ত্রী বিশ্বকর্মা শংসাপত্র ও পরিচয়পত্র প্রদান করা হবে শিল্পীদেরকে, যা তাদের সম্মান এবং শিল্পী সম্প্রদায়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান দেবে।

    ১ম ধাপের ঋণের মেয়াদ ১৮ মাস

    প্রথম পর্যায়ে ১০০,০০০ টাকা পর্যন্ত ঋণের মেয়াদ ১৮ মাস থাকবে, যা শিল্পীদেরকে তাদের প্রয়োজনীয় সময় দেবে তাদের প্রয়োজনীয় প্রকল্প উন্নত করতে।

    ২য় পর্য্যের ঋণের মেয়াদ ৩০ মাস

    দ্বিতীয় পর্য্যে ২,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত ঋণের মেয়াদ ৩০ মাস থাকবে, যা শিল্পীদেরকে তাদের প্রকল্পগুলি বিস্তারিত করতে সময় দেবে।

    টাকা ফেরতের ক্ষেত্রে প্রতি ডিজিটাল লেনদেনে ১ টাকা করে ইনসেনটিভ দেবে সরকার

    ঋণ পরিশোধের সময়, প্রতি ডিজিটাল লেনদেনে ১ টাকা করে ইনসেনটিভ দেবে সরকার। এটি একটি অভ্যন্তরীণ প্রশাসনিক প্রক্রিয়া সহিত ঋণ পরিশোধের প্রক্রিয়াকে সহজ ও দ্রুত করতে সাহায্য করবে।

    এতে কে লাভবান হবে?

    এই প্রকল্পে যোগ্য কর্মীদের মধ্যে নিম্নলিখিত শিল্পাণু এবং কারিগরদের লাভ হবে:

    1. মাছের জাল প্রস্তুতকারক
    2. দর্জি
    3. ধোপা
    4. মালা প্রস্তুতকারক
    5. নাপিত
    6. পুতুল এবং খেলনা প্রস্তুতকারক (প্রচলিত)
    7. ঝুড়ি/মাদুর প্রস্তুতকারক
    8. রাজমিস্ত্রি
    9. মুচি (চর্মকার)/জুতোর কারিগর
    10. ভাস্কর (মূর্তিকার, স্টোন কার্ভার)
    11. কুমার
    12. স্বর্ণকার
    13. হাতুড়ি এবং টুল কিট প্রস্তুতকারক
    14. কামার
    15. নৌকা নির্মাতা
    16. কাঠমিস্ত্রি

    আপনি কীভাবে আর্থিক সাহায্য পাবেন?

    প্রধানমন্ত্রী বিশ্বকর্মা যোজনার আওতায় প্রথম ধাপে ১ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ দেওয়া হবে, এবং এর সুদের হার হবে সর্বোচ্চ ৫ শতাংশ। এর পরে, দ্বিতীয় পর্যায়ে, যোগ্য কর্মীদের প্রতিটি ব্যক্তি ২ লক্ষ টাকা ছাড় পাবে, এছাড়াও এই কারিগর ও কারিগরদের প্রধানমন্ত্রী বিশ্বকর্মা সার্টিফিকেট ও পরিচয়পত্রও প্রদান করা হবে। আধুনিক যন্ত্রপাতি কেনার জন্য ১৫,০০০ টাকা সহায়তা প্রদান করা হবে।

    সুবিধা পাওয়ার শর্ত

    এই প্রকল্পের আওতায় সরকার পাঁচ বছরের (FY24-28) মেয়াদের জন্য ১৩,০০০ কোটি টাকা অনুমোদন করেছে। এই প্রকল্পের অধীনে সর্বনিম্ন বয়স রাখা হয়েছে ১৮ বছর এবং পরিবারের মাত্র একজন সদস্য এই প্রকল্পের সুবিধা পাবেন। আবেদনকারীদের একটি স্ব-ঘোষণা ফর্মও দিতে হবে।

    প্রধানমন্ত্রী বিশ্বকর্মা যোজনা একটি মৌলিক প্রয়াস, যা শিল্পীদের ও কারিগরদের উৎসাহিত করবে এবং তাদের আর্থিক স্থিতি উন্নত করতে সাহায্য করবে। এই যোজনা ভারতের শিল্প ও কারিগরি সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিত করতে একটি মাধ্যমে উন্নতির পথে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দ্বারা অগ্রসর করা হয়েছে।

    সবার আগে আমাদের পোষ্ট পড়তে আমাদের টেলিগ্রাম জয়েন হন ও ফেসবুক পেজ ফলো করুন নীচে লিঙ্ক 👇