Wed. Feb 28th, 2024
    WhatsApp Group Join Now
    Telegram Group Join Now

    আমাদের দৈনন্দিন জীবনে আমরা নিজের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে দুধ পান করে থাকি। আমরা জানি না যে দুধ খাচ্ছি সেটা আসল না নকল। তাই আজকের এই ছোট্ট টিপস দিলাম কি ভাবে চিনবো। নীচে পড়ুন।

     

    1. একটি ঢালু গ্লাস অথবা পলিসড কোনো জায়গায় শুধু মাত্র এক ফোটা দুধ ফেলুন।
    2. দুধ বিশুদ্ধ হলে গড়িয়ে পড়বার সময় সাদা রঙের একটা ছাপ ফেলে যাবে আর ধীরে ধীরে গড়িয়ে পড়বে।
    3. দুধ যদি কোনো ছাপ না রেখে দ্রুত গড়িয়ে পড়ে তাহলে বুঝবেন দুধে পানি মেশানো আছে।
    4. এছাড়া আরো একটা টিপস দিচ্ছি ল্যাক্টোমিটার দিয়েও আপনি পরীক্ষা করতে পারেন। M পর্যন্ত মিটার পূর্ণ হলে বুঝবেন দুধ বিশুদ্ধ আর এর নিচে থাকলে বুঝবেন যে দুধে জল মেশানো আছে।

     

    কোন কোন খাবার খেলে ডায়াবেটিস হবে না?

    কোন কোন খাবার খেলে ডায়াবেটিস হবে না?

     

    বেদানা: সব ফলের মধ্যে সবচেয়ে বেশি অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট রয়েছে বেদানায়। এর ফ্রি র‌্যাডিক্যাল ডায়াবেটিসের মোকাবিলায় সাহায্য করে।

     

    আঙুর: আঙুরের মধ্যে থাকা ফাইটোকেমিক্যাল রেসভারেট্রল রক্তে গ্লুকোজ এর মাত্রাকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

     

    আপেল: ডায়াবেটিক যদি কারো হয়ে থাকে তবে অবশ্যই রোজ খান আপেল। এমনকী, ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতেও খান আপেল। টাইপ টু ডায়াবেটিস রুখতে এটি দারুণ কাজ করে আপেল।

     

    ব্লুবেরি: অ্যান্থসায়ানিন থাকার কারণে ব্লুবেরি খেলে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি অনেক তাড়াতাড়ি কমে।

     

    কোন কোন খাবার খেলে ডায়াবেটিস হবে না?

     

     

    স্ট্রবেরি: লো গ্লাইসেমিক ইনডেক্স হওয়ার কারণে রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে স্ট্রবেরি। যার ফলে স্ট্রবেরি খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে, হজম শক্তি বাড়ে, ওজনও নিয়ন্ত্রণে থাকে।

     

     

     

    পেয়ারা: লো গ্লাইসেমিক ইনডেক্সের পাশাপাশি পেয়ারার মধ্যে থাকা প্রচুর পরিমাণ ফাইবার টাইপ টু ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়, কোষ্ঠকাঠিন্য রুখতে সাহায্য করে।Government Exam

     

    তরমুজ: তরমুজে থাকা প্রচুর পরিমাণ পটাশিয়াম রক্তে ইউরিক অ্যাসিড নিয়ন্ত্রণে রাখে। ফলে ডায়াবেটিসের প্রভাবে হওয়া কিডনির ক্ষতি রুখতে সাহায্য করে তরমুজ। এর মধ্যে থাকা লাইকোপেন নার্ভের সমস্যাও রুখতে পারে।

     

    চেরি: ব্লুবেরির মতোই চেরিতেও রয়েছে অ্যান্থসায়ানিন। যা রক্তে ইনসুলিনের মাত্রা ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বাড়িয়ে দিতে পারে। ফলে ডায়াবেটিস রুখতে চেরি খুবই উপকারী।

     

    পেঁপে: পেঁপের মধ্যে থাকা ন্যাচারাল অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট শুধু মাত্র ডায়াবেটিস রুখতেই নয়, হার্ট ও নার্ভের স্বাস্থ্য ভাল রাখতেও খুবই উপকারী।

     

    কোন কোন খাবার খেলে ডায়াবেটিস হবে না?

     

     

    কমলালেবু: ফ্লাভনলস ও ফেনোলিক অ্যাসিড রয়েছে কমলালেবুর মধ্যে। এই দুই উপাদান রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে অত্যন্ত কার্যকরী।

     

     

    পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতাগুলো কী কী?

    পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতাগুলো কী কী

     

    পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতাগুলো নিম্নলিখিত হতে পারেঃ

     

    ১. পেয়ারা মিষ্টি এবং স্বাদিষ্ট ফল যা প্রাকৃতিক চিকনতা এবং মধুর স্বাদ দেয়।

     

    ২. পেয়ারা ফলে ভরপুর পাইকারি ও ফাইবার থাকা কারণে এটি পাচনশক্তি বাড়ানোতে সহায়তা করে এবং ডায়বেটিস নিয়ন্ত্রণেও সহায়তা করতে পারে।

     

    ৩. পেয়ারা ফলে ভিটামিন সি এবং পটাশিয়ামের প্রাকৃতিক উৎস পাওয়া যায়।

     

    ৪. পেয়ারা খাওয়ার মাধ্যমে লো ক্যালরি ও হাইড্রেশন পাওয়া যায় যা ওজন বাধা দেয় এবং ত্বক স্বাস্থ্য উন্নয়নেও সহায়তা করতে পারে।

     

    ৫. পেয়ারা ফলে আর্থরাইটিস, ক্যান্সার এবং হৃদরোগ মোকাবেলা করার জন্য উপকারী হতে পারে।

     

    এছাড়াও, পেয়ারা ফলে আরও অনেক কিছু আছে যা মানুষের জীবনে উপকারী হতে পারে, যেমন স্বাস্থ্যমন্দ হতে সহায়তা করা, সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক এবং বিনামূল্যে উপভোগ করা যায়।

    আমাদের এই পোষ্ট তা যদি ভালো লেগে থাকে অবশ্যই শেয়ার করবেন। ভুল থাকলে মাপ করবেন। 🙏

    #দুধ

     

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *