Thu. Feb 22nd, 2024

    WhatsApp Group Join Now
    Telegram Group Join Now

    আসলে টিকটিকির সাথে ডাইনোসরদের কোনো সম্পর্ক নেই।। টিকটিকি থেকে ডাইনোসর একটি বইয়ের নাম। বইটি আমার পড়া হয় নি যদিও।বিজ্ঞানীরা কিন্তু কারা ডাইনোসর এবং কারা নয় তার ভাগ অনেক আগেই করে রেখেছেন।

     

    আমরা জানি  ডাইনোসররা ছিল সরীসৃপ, এবং আমাদের চেনা জানা সরীসৃপদের সাথে ডাইনোসরদের অবশ্যই অনেক তফাৎ আছে। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের ‘মিশর রহস্য’ উপন্যাস থেকে করা ছবিটিতে কাকাবাবুর সংলাপের উদ্ধৃতি দেওয়া যাক, “টিকটিকি আর ডাইনোসর একগোত্র হলেও, এরা এক জিনিস নয়”।

     

    তাহলে দেখা যাক ডাইনোসরদের কেমন করে আলাদা করা যায়। ডাইনোসররা প্রাচীন আর্কোসরদের বংশধর যারা ২৫০ মিলিয়ন বছর আগে পার্মিয়ান কিংবা ট্রায়াসিক সময়ে পৃথিবী জুড়ে যে ভয়ানক বিলুপ্তি ঘটেছিল তা থেকে বেঁচে গিয়েছিল। এরপর ধরা যাক ডাইনোসররা ছিল মাটির উপরের প্রাণী এবং তাদের সন্তান জন্ম পেত ডিম থেকে।

     

    আর্কোসরদের অন্যান্য বংশধরদের থেকে (যেমন টেরোডেক্টাইল) কেমন করে ডাইনোরসরদের আলাদা করা যায় তাদের শরীরের ভিতরের গঠন থেকে। যেসব ডাইনোসর দুই পায়ের উপর ভর করে চলাফেরা করত তারা একটু উঁচু হয়ে অনেকটা এই যুগের পাখিদের মতন দাড়াত।

     

    চারপায়ীরা একেবারে শক্ত হয়ে থাকত এবং সোজা পা ফেলে চলাফেরা করত(হাতিদের মতন। আমাদের যুগের সরীসৃপরা কিন্তু সোজা পা ফেলে চলে না, তাদের পা ভাজ হয়ে থাকে)।

     

    বন্ধুরা আমাদের এই ছোট্ট পোস্টি যদি ভালো লেগে থাকে তবে শেয়ার করবেন। আমরা এই নেট দুনিয়া বা সোশ্যাল মিডিয়া থেকে যে টুকু তথ্য কালেকশন করতে পেরে ছিলাম। তা এই পোষ্ট এর মধ্যমে আপনাদের কাছে শেয়ার করলাম।

     

    যদি এই বিষয়ে আরো কিছু তথ্য পায় তা হলে পরের পোষ্ট এ আপনা দের কাছে শেয়ার করবো। এই পোষ্ট এর মধ্যে যদি কোনো বানান বা উচ্চারণ ভুল থাকে তবে মাপ করবেন। আপনার দের সুন্দর কমেন্ট এর জন্য আমি অপেক্ষা করবো। পোস্টি পড়ার জন্য অনেক “ধন্যবাদ”🙏

     

     

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *